Economic Relations Division Government of the People's Republic of Bangladesh
Select menu
Text size A A A
Color C C C C
Last updated: 27th February 2017

Private Sector Development Support Project (PSDSP)

 
Picture Project Director/Deputy project Director Address/Telephone/Email

Mahmuda Begum (2333)

Additional Secretary Wing Chief-WB &
Project Director
 

Room # 04, Block # 16, ERD
9180675(O), 9663508(R),
01730710381(M), 106(I)
Fax:  +8802-9180671
e-mail:addl-secy2@erd.gov.bd;
mahmuda.baro@gmail.com

A.H.M. Jahangir (0261)

Deputy Chief &
Deputy Project Director

Room# 13, Block# 16
9119308(O), 9129551 (R),
01713199932(M), 107(I)

Email: dc-wb3@erd.gov.bd
ajahangi007@yahoo.com

বাংলাদেশের অর্থনীতিতে মূল্য সংযোজন এবং কর্ম-সংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে দেশের গ্রোথ সেন্টারসমূহে (Special Economic Zones, Export Processing Zonesইত্যাদি) বিনিয়োগের জন্য “Private Sector Development Support Project (PSDSP)”বাস্তবায়িতহচ্ছে।প্রকল্পটিরমাধ্যমেদেশেরদক্ষিণ-পূর্ব, দক্ষিণ-পশ্চিমএবংউত্তর-পশ্চিমঅঞ্চলেরবিভিন্নস্থানেSpecial Economic Zones/IT/Hi-Tech Parksস্থাপনেরজন্যসম্ভাব্যতাযাচাই, Special Economic Zones/IT/Hi-Tech Parksস্থাপনেরপরতাতেসংযোগ-সড়ক, রেল-যোগাযোগস্থাপন, গ্যাস-বিদ্যুৎসংযোগপ্রদানসহপানিওপয়ঃনিষ্কাশনব্যবস্থাপ্রদানSpecial Economic Zones/IT/Hi-TechParks-এর ভিতরে এবং বাইরে স্থাপিত শিল্প-কারখানার মধ্যে বিভিন্ন ধরনের সম্পর্ক যেমনঃ পশ্চাৎ-সংযোগ শিল্প স্থাপনের জন্য সহায়ক কর্মকান্ড বাস্তবায়ন করা হবে।

PSDSP প্রকল্পের উদ্দেশ্য নিম্নরূপঃ

এপ্রকল্পেরউন্নয়নউদ্দেশ্য (Project Development Objective-PDO)হ’লকর্মসংস্থানেরসুযোগসৃষ্টিরলক্ষ্যেদেশেরঅর্থনীতিরগ্রোথসেন্টারসমূহেরউদীয়মানশিল্পওসেবাখাতেবিনিয়োগসুবিধাবৃদ্ধিকরা।

প্রকল্পেরকার্যাদিনিম্নরূপঃ

  • আর্থিক, কারিগরি, আইনগত, ক্রয়/সংগ্রহসামাজিকওপরিবেশগতক্ষেত্রেসক্ষমতাবৃদ্ধি;
  • আর্থিক, অর্থনৈতিক, আইনগত, সামাজিকওপরিবেশগতমূল্যায়নসহফিজিবিলিটিস্ট্যাডিওডিমান্ডসমীক্ষা(demand survey)পরিচালনাকরা;
  • ব্যক্তিখাতেরঅংশগ্রহণেরলক্ষ্যেপরিবেশগতএবংসামাজিকঅবকাঠামোএলাকাচিহ্নিতকরণএবংমূল্যনির্ধারণসংক্রান্তবিষয়াবলিঅন্তর্ভুক্তকরেমাস্টারপ্লানপ্রস্তুতকরণসহতথ্যস্মারকের(Information memoranda) উন্নয়ন;
  • কালিয়াকৈরহাই-টেকপার্কসহভবিষ্যতেকোনঅর্থনৈতিকজোনপ্রতিষ্ঠারলক্ষ্যেযেসকলপ্রতিষ্ঠানগ্রহিতার(Recipient)সাথেকনসেসনবিষয়কচুক্তিতেআবদ্ধহবেন, তাদেরপারফরমেন্সপরিবীক্ষণকরারজন্যকার্যনির্দেশিকাপ্রণয়নএবংউপর্যুক্তবিষয়েকোনলেনদেনসম্পাদনকালেএতদ‌‌‌‌‌‍‍‍‍সংক্রান্তসকলআইনগতওরেগুলেটরিবিষয়সমূহেরপ্রতিপালননিশ্চিতকরণ; 
  • একটিযথোপযুক্তঅভিযোগনিষ্পত্তিরকৌশলউন্নয়ন

মোট অর্থায়নের পরিমাণঃ বিশ্বব্যাংক ঋণঃ ৪০মিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং ডিএফআইডিঅনুদান: ১৭.৬০মিলিয়নমার্কিনড

ঋণ/অনুদান চুক্তি স্বাক্ষরের তারিখঃ বিশ্বব্যাংক: ২২মে২০১১এবংডিএফআইডি:০৮জুলাই২০১১

Private  Sector  Development  Support  Project

(PSDSP)একটিগুচ্ছপ্রকল্প।তিনটিসংস্থাপ্রকল্পটিবাস্তবায়নকরছে।প্রকল্পেরকাজসুষ্ঠুভাবেসম্পাদনএবংসংস্থাতিনটিরমধ্যেকার্যকরসমন্বয়েরজন্যঅর্থনৈতিকসম্পর্কবিভাগেCentral Coordination Unit (CCU)নামেএকটিসমন্বয়ইউনিটস্থাপনকরাহয়েছে।উক্তইউনিটপরিচালনারজন্যCentral Coordination Unit of the Private Sector Development Support Project (PSDSP)শীর্ষকএকটিকারিগরিসহায়তাপ্রকল্পবাস্তবায়নকরাহচ্ছে।
টিএ প্রকল্পেরমোটব্যয়ঃমোট৬৪৫.০০লক্ষটাকা (বিশ্বব্যাংকঋণ২২২.৮৯লক্ষটাকাএবংডিএফআইডিঅনুদান৪২২.১২লক্ষটাকা।সম্পূর্ণঅর্থইপ্রকল্পসাহায্য।) প্রকল্পেরঅনুমোদন:৩১জানুয়ারি২০১২
 

..৩   Central Coordination Unit (CCU)এরকার্যাবলিঃ

প্রকল্পেরকার্যাদিসুষ্ঠুভাবেসম্পন্নকরারলক্ষ্যেঅর্থনৈতিকসম্পর্কবিভাগেএকটিসেন্ট্রালকো-অর্ডিনেশনইউনিট (সিসিইউ) প্রতিষ্ঠাকরাহয়েছেযানিম্নবর্ণিতকার্যাবলিসম্পাদনকরবেঃ

ক.  প্রকল্পউপদেষ্টাকমিটির(Project Advisory Committee) সচিবালয়হিসেবেদায়িত্বপালন;

খ.  আন্তবিভাগএবংআন্তমন্ত্রণালয়েরমধ্যেসমন্বয়সাধনএবংএতদসংক্রান্তকার্যাবলিতেসহযোগিতাপ্রদান;

গ.   বাস্তবায়নকারীসংস্থাকর্তৃকদাখিলকৃতবাৎসরিককর্মপরিকল্পনাএকত্রীকরণ;

ঘ.   বিশ্বব্যাংকেঅর্থউত্তোলনেরআবেদনপ্রেরণ, নিরীক্ষাকার্যেরসমন্বয়, অর্থআহরণওব্যবহারেরপরিবীক্ষণএবংবিশ্বব্যাংকঅগ্রগতিপ্রতিবেদনদাখিলেরবিষয়েএককডেলিভারিমেকানিজমহিসেবেদায়িত্বপালন;

ঙ.  বহিনিরীক্ষকদেরকাজেসহযোগিতাকরাএবংসঠিকসময়েঅডিটআপত্তিরজবাবপ্রদান;

চ.  প্রকল্পেরক্রয়/সংগ্রহওআর্থিকব্যবস্থাপনারউপরউপদেশপ্রদানসহএসকলবিষয়েরউপরপ্রশিক্ষণেরআয়োজনকরা;

ছ.  পাবলিকপ্রাইভেটপার্টনারশীপবাপিপিপিএরউপরপ্রশিক্ষণআয়োজনকরাএবং

জ.  প্রকল্পেরসার্বিককৌশলসম্পর্কেসংবাদমাধ্যম, জাতীয়সংসদসহঅন্যান্যস্টেকহোল্ডারদেরঅবহিতকরারলক্ষ্যেব্রিফিংসহপ্রয়োজনমতঅন্যান্যপ্রকল্পদলিলপ্রস্তুতকরা।

সিসিইউযুগ্মসচিব/যুগ্মপ্রধানেরপদমর্যাদারএকজনপ্রকল্পসমন্বয়ক, একজনউপ-প্রকল্পসমন্বয়ক, একজনসহকারীপ্রকল্পসমন্বয়ক,একজনকরেআর্থিকওপ্রকিউরমেন্টপরামর্শকওঅন্যান্যপ্রয়োজনীয়সংখ্যকজনবলেরসমন্বয়েগঠিতহবে।

তিনটিসংস্থাপ্রকল্পটিবাস্তবায়নকরছে।সংস্থাতিনটিকর্তৃকবাস্তবায়িতপ্রকল্পগুলোরবর্ণনাওকার্যাবলিনিম্নেউপস্থাপনকরাহলঃ

৪.৫.৪     সাপোর্ট টু ক্যাপাসিটি বিল্ডিং অব বাংলাদেশ ইকনোমিক জোনস অথরিটি
 মোট ব্যয় ৭৩.২০ কোটি টাকা (৯.২৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) ।

            জিওবিঃ ১.২৭ কোটি টাকা এবং পিএঃ  ৭১.৯৩ কোটি টাকা।
 প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উদ্যোগে গৃহীত এবং বাংলাদেশ ইকনোমিক জোনস অথরিটি (BEZA)কর্তৃক বাস্তবায়িতব্য “সাপোর্ট টু ক্যাপাসিটি বিল্ডিং অব বাংলাদেশ ইকনোমিক জোনস্ অথরিটি” শীর্ষক কারিগরি সহায়তা প্রকল্পটি বাংলাদেশ ইকনোমিক জোনস অথরিটিকে প্রয়োজনীয় আইন- কানুন এবং বিধি-বিধানের মাধ্যমে কার্যকর প্রতিষ্ঠানে উন্নীত করবে। এর মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে উদীয়মান ম্যানুফ্যাকচারিং এবং সার্ভিসেস সেক্টরে বিনিয়োগ বৃদ্ধি পাবে। ফলে ব্যাপক কর্মসংস্থান তৈরির মাধ্যমে ইকনোমিক জোনস এর বিকাশ ঘটানো সম্ভব হবে। দেশ-বিদেশের খ্যাতনামা ফার্মসমূহ এ সমস্ত সেবা প্রদানের জন্য পরামর্শক সেবা প্রদান করবেন। এছাড়া ফিন্যান্স, আইটি ইত্যাদি বিষয়সহ পরিবেশ ও সামাজিক ব্যবস্থাপনার জন্য আলাদা আলাদা বিশেষজ্ঞ নিয়োগ করা হবে। সর্বোপরি বাংলাদেশ ইকনোমিক জোনস অথরিটির সকল কার্যক্রম সুচারুরূপে সম্পাদনের জন্য পণ্য সংগ্রহ, আইটি বিষয়ক, অফিস ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত , এবং নেটওয়ার্র্কিংসহ সকল প্রয়োজনীয় বিষয়ে প্রকল্পের মাধ্যমে সহায়তা দে’য়া হবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে ইতোমধ্যে তিনটি স্থানের (মৌলাভবাজার জেলার শেরপুর এবং চট্টগ্রাম জেলার মিরেরসরাই ও আনোয়ারা) সম্ভাব্যতা যাচাই সম্পন্ন করা হয়েছে। তাছাড়া, মংলায় ইকনোদিক জোনস স্থাপনের জন্য দরপত্র আহবান করা হয়েছে।

৪.৫.৫    ক্যাপাসিটি বিল্ডিং অব বাংলাদেশ এক্সপোর্ট প্রসেসিং জোনস অথরিটি
মোট ব্যয় ৭৫.৩৯ কোটি টাকা ।

            জিওবিঃ ০.০০ এবং পিএঃ৭৫.৩৯ কোটি টাকা 

 প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের উদ্যোগে গৃহীত এবং বাংলাদেশ এক্সপোর্ট প্রসেসিং জোনস অথরিটি (BEPZA)কর্তৃক বাস্তবায়িতব্য “ক্যাপাসিটি বিল্ডিং অব বাংলাদেশ এক্সপোর্ট প্রসেসিং জোনস অথরিটি’’ শীর্ষক কারিগরি সহায়তা প্রকল্পটি বিশ্বব্যাংক ও ডিএফআইডির আর্থিক সহায়তায় বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রকল্পটিতে সামাজিক সচেতনতা বৃদ্ধি, প্রশিক্ষণ, স্টাডি ট্যুর ও বিনিয়োগ উন্নয়ন বিষয়ক ব্যবস্থা রাখা হুয়েছে। পরিবেশ ব্যবস্থাপনার আওতায় Environment Specialist and Counselorsনিয়োগ এবং পরিবেশ অডিট অন্তর্ভুক্ত আছে। প্রকল্পের সামগ্রিক Co-ordination Unitহিসেবে ইআরডি দায়িত্ব পালন করছে। প্রকল্পের সাথে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণ, ষ্টাডি ট্যুর ও বিনিয়োগ উন্নয়ন বিষয়ক সেমিনারে অংশগ্রহণ করানো হচ্ছে। দেশে কর্মসংস্থান সৃষ্টির উদ্দেশ্যে বিনিয়োগ বান্ধব নীতি ও প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা প্রদান ও বেপজাকে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে সুদক্ষ করাইএ প্রকল্পটি কাজ করছে।

৪.৫.৬    সাপোর্ট টু ডেভেলপমেন্ট অব কালিয়াকৈর হাইটেক পার্ক

 

            মোটব্যয় ২৩৬.৯৯কোটি টাকা ।

            জিওবিঃ  ১১.৭৫ কোটি টাকা

            প্রকল্প সাহায্যঃ২২৫.২৪ কোটি টাকা

প্রকল্পের উদ্দেশ্যঃ

  • আইসিটি সংক্রান্ত আধুনিক হাইটেক শিল্প স্থাপনের জন্য বিশ্বমানের হাইটেক পার্ক তৈরি;
  • হাইটেক পার্কের অবকাঠামো উন্নয়নের লক্ষ্যে আন্তর্জাতিক মানের ডেভেলপার নিয়োগ;
  • পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ বিষয়ে প্রশিক্ষণ ম্যানুয়াল তৈরি; এবং
  • হাইটেক পার্ক সম্পর্কিত প্রতিষ্ঠানসমূহের দক্ষতা বৃদ্ধিকরণ।

 ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য হাইটেক পার্ক স্থাপন একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় কর্তৃক জানুয়ারি ২০০৬ থেকে মার্চ ২০১০ মেয়াদে মোট ২৬.৮৬ কোটি টাকায় বেসিক ইনফ্রাস্ট্রাকচার ফর হাইটেক পার্ক, কালিয়াকৈর, গাজীপুর শীর্ষক প্রকল্পের মাধ্যমে হাইটেক পার্ক প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম বাস্তবায়িত হয়। এ প্রকল্পের মাধ্যমে হাইটেক পার্কে প্রশাসনিক ভবন, সীমানা  প্রাচীর, আন্তর্জাতিক মানের গেইটওয়ে, অভ্যন্তরীণ রাস্তা, বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন, পাম্প হাউস ও গভীর নলকূপ, গ্যাস লাইন, ইন্টারনেট কানেকটিভিটি, টেলিফোন সাব এক্সচেঞ্জ এবং আনসার সেড প্রভৃতির নির্মাণ কাজ করা হয়েছে।

            তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় কর্তৃক বাস্তবায়িত হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষ ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য হাইটেক পার্ক স্থাপন একটি অত্যন্ত গরুত্বপূর্ণ কার্যক্রম। হাইটেক পার্ক স্থাপনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের এর মাধ্যমে একটি সম্ভাব্যতা সমীক্ষা করা হয়। উক্ত সমীক্ষার আলোকে দেশে আইসিটি, ইলেক্টনিক্স টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং এবং অন্যান্য শিল্প উন্নয়ন এবং বিকাশের জন্য উল্লিখিত প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হচ্ছে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে ইতোমধ্যে কালিয়াকৈর হাইটেক পার্ক স্থাপনের জন্য ডেভলপার নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। যশোহরে একটি মাল্টি টেন্যান্ট বিল্ডিং স্থাপন করা হয়েছে। তাছাড়া, সিলেট ও রাজশাহীতে হাইটেক পার্ক স্থাপনের কাজ হাতে নে’য়া হয়েছে।

 
 

Share with :
Facebook Facebook